মহাপরিচালক বিআরডিবি

dgbrdb1

মোহাম্মদ আবদুল কাইয়ূম,মহাপরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) বিআরডিবি

পল্লী দারিদ্র্য বিমোচন কর্মসূচি (পদাবিক) বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন বোর্ডের আওতায় সম্পূর্ণ সরকারী অর্থায়নে জুলাই ১৯৯৩ হতে ধারাবাহিকভাবে জুন ২০০৫ পর্যন্ত বাস্তবায়িত হয়। জুলাই ২০০৫ হতে প্রকল্পটি নিজস্ব ঋণ তহবিল ব্যবহার করে উপার্জনকৃত সেবামূল্য দ্বারা কর্মসূচি আকারে কার্যক্রম ও যাবতীয় পরিচালন ব্যয় নির্বাহ করে আসছে। বর্তমানে পদাবিক দেশের ২২ জেলার ১০৩টি উপজেলায় এ পদ্ধতিতে বাস্তবায়িত হচ্ছে।

পদাবিক দারিদ্র বিমোচনে সরকারের অন্যতম বৃহৎ উদ্যোগ হিসাবে পলস্নীর বিত্তহীন সুবিধাবঞ্চিত মানুষদের অনানুষ্ঠানিক দলভুক্ত করে গ্রামভিত্তিক মানব-অবকাঠামো সৃষ্টিতে গুরম্নত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। পদাবিকের উদ্দেশ্য হলো সংগঠিত গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর দক্ষতা বৃদ্ধি ও মানবসম্পদ উন্নয়ন, তাদের নিজস্ব মূলধন গঠন, আয়বর্ধক কার্যক্রমে ঋণ সহায়তা প্রদান, আত্মকর্মসংস্থান সৃজন এবং তাদেরকে স্বাবলম্বী হিসাবে গড়ে তোলা। পদাবিকের প্রশিক্ষিত ও দক্ষ কর্মীবাহিনী এ সকল কার্যক্রম সফল করতে নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। বাংলাদেশের দারিদ্র বিমোচনে বিআরডিবি’র সহায়তায় বাসত্মবায়নাধীন অন্যান্য প্রকল্প/কর্মসূচির পাশাপাশি পদাবিকের স্বাতন্ত্র্য বৈশিষ্ট্য সর্বমহলে প্রশংসিত হয়েছে। সাফল্যের এ ধারাবাহিকতা ভবিষ্যতেও অব্যাহত থাকবে-এই প্রত্যাশা করি।

পল্লী উন্নয়ন ও দারিদ্র বিমোচনে তথ্যের অবাধ প্রবাহ এবং দরিদ্র জনগোষ্ঠীকে মানসম্মত সেবা প্রদান নিশ্চিতকরণে আইসিটির ভূমিকা উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে। বর্তমান সরকারের ভিশন ২০২১ এবং এসডিজি’র লক্ষ্য অর্জনে বিআরডিবি’র কার্যক্রমের সকল পর্যায়ে তথ্য-প্রযুক্তির অধিকতর ব্যবহার জরম্নরি। এ পরিপ্রেক্ষিতে ডিজিটাল বিআরডিবি বিনির্মাণে পদাবিকের এই ওয়েবপেইজ একটি উলেস্নখযোগ্য সংযোজন বলে আমি মনে করি। আশা করি এর মাধ্যমে পদাবিকের কার্যক্রমে আরও স্বচ্ছতা প্রদর্শন ও জবাবদিহিতার  ক্ষত্র তৈরি হবে এবং সুফলভোগী সদস্যগণ আরও সহজে তাদের কাঙ্খিত সেবা পেতে পারবেন।

মোহাম্মদ আবদুল কাইয়ূম

মহাপরিচালক বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন বোর্ড